'কংগ্রেসে আমিই সর্বেসর্বা', বিক্ষুব্ধদের কড়া বার্তা সোনিয়ার

'কংগ্রেসে আমিই সর্বেসর্বা', বিক্ষুব্ধদের কড়া বার্তা সোনিয়ার

আরোহী নিউজ ডেস্ক: পূর্ব বিজ্ঞপ্তি মতো শনিবার দিল্লিতে শুরু হয়েছে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক। এই বৈঠকে বড় সিদ্ধান্ত নিলেন সোনিয়া গান্ধী। তিনি সাফ জানালেন, তিনিই হচ্ছেন দলের 'পূর্ণ সময়ের সভাপতি'। এর আগে কংগ্রেসের অন্তর্বর্তীকালীন সভাপতির পদ সামলাচ্ছিলেন সোনিয়া।

এদিনের বৈঠকে সোনিয়া বলেন, 'সংবাদমাধ্যমের মারফৎ আমাকে বার্তা দেওয়ার দরকার নেই।' পাশাপাশি সোনিয়া বলেন, 'সঠিক ভাবে আলোচনা হওয়া উচিত। তবে এই ঘরের যে সিদ্ধান্তই বাইরে যাক না কেন, তা যেন কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির সম্মিলিত সিদ্ধান্ত হয়।'

অন্যদিকে, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং শারীরিক অসুস্থতার জন্য এদিনের বৈঠকে হাজির থাকতে পারেননি। এছাড়া দিগ্বিজয় সিং সহ আরও চার কংগ্রেস নেতা এদিনের বৈঠকে উপস্থিত নেই বলে জানা গিয়েছে। সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, মোট ৫২ জন কংগ্রেস নেতা এই বৈঠকে যোগ দিয়েছেন।

নতুন সভাপতি, 'বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থা' এবং পরের বছরে রাজ্যগুলিতে নির্বাচন নিয়ে এই বৈঠকে আলোচনা হবে বলে আগেই জানানো হয়েছিল। গত ৯ অক্টোবর কংগ্রেসের তরফে বিবৃতি জারি করে ১৬ অক্টোবরের এই ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকের ব্যাপারে জানানো হয়।

কোভিড মহামারীর দাপটের পর থেকেই এই বৈঠক নিয়ে বারেবারে আলোচনা হলেও কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক হচ্ছিল না। অবশেষে দশমীর পরের দিনই এই বৈঠক হবে বলে স্থির হয়।

উল্লেখ্য, গত মাসেই পঞ্জাবে অমরিন্দর সিংয়ের পরিবর্তে চরণজিৎ সিং চান্নিকে মুখ্যমন্ত্রী বেছে নেয় কংগ্রেস। চরণজিৎ সিং চান্নিই হলেন পঞ্জাবের প্রথম দলিত মুখ্যমন্ত্রী। তখনই, কংগ্রেস নেতা রণদীপ সুরজেওয়ালা জানিয়েছিলেন, খুব শীঘ্রই কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক হবে। পরে এই মাসের শুরুতে জানানো হয় বৈঠক হবে ১৬ অক্টোবর।

দিনকয়েক আগে কংগ্রেস নেতা কপিল সিব্বল চিঠি লিখে বৈঠকের পক্ষে সওয়াল করেছিলেন। তিনি চিঠিতে লেখেন, 'কংগ্রেসে এখন কোনও প্রেসিডেন্ট নেই। কে সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন, আমরা জানি না। দলে কে সিদ্ধান্ত নেবে তা জানা নেই।' এছাড়া এই বৈঠকের দাবি তুলে সরব হয়েছিলেন গুলাম নবি আজাদও।