আরোহী নিউজ ডেস্ক: সদ্যোজাত জন্মগ্রহণ করলে সেখানে কিন্নরদের পৌঁছে যাওয়ার একটি বহু প্রাচীন রীতি রয়েছে। এখনও বিভিন্ন গ্রামে সদ্যোজাত জন্মানোর খবর পেলেই, হাজির হয়ে যান কিন্নররা। বহু হাসপাতালেও দেখা মেলে তাদের। কিন্নরদের হাতে শিশুকে নাচানো, শুভ বলে মনে করা হয়। তবে করোনার দাপটে সংকটে পড়েছে কিন্নরদের রোজনামচা। তাই কিন্নরদের সাহায্য করতে এবং কিছুটা খুশি উপহার দিতে, তাদের সঙ্গে জন্মদিন পালন করলেন দুর্গাপুরের দুই যুবক।

একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত, ওই দুই যুবক কিন্নরদের সঙ্গে তাদের জন্মদিনের আনন্দ ভাগ করে নিয়েছেন। তাদের হাতে তুলে দিয়েছেন কিছু খাদ্য সামগ্রী। কিন্নরদের পক্ষ থেকেও দুই ‘বার্থডে বয়’কে পায়েস এবং মিষ্টি খাওয়ানো হয়েছে। দুর্গাপুরের দুই যুবক দেবরাজ দত্ত এবং আদিত্য সাউ। ২১ জুলাই ছিল দেবরাজের জন্মদিন এবং তার দিদার মৃত্যুবার্ষিকী। অন্যদিকে আদিত্যরও এদিন জন্মদিন ছিল। এই দুই যুবক একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সঙ্গে যুক্ত। তাই তারা এই বছরের জন্মদিনটা সেবামূলক কোন কাজের মাধ্যমেই সেলিব্রেট করতে চেয়েছিলেন। সেইমতো দেবরাজ এবং আদিত্য কেক নিয়ে পৌছে যান কিন্নরদের কাছে। কেক কেটে সেখানে জন্মদিন পালন করেন।

কিন্নরদের পক্ষ থেকেও দুই বার্থডে বয়ের জন্য বিশেষ আয়োজন করা হয়। তারা পায়েস এবং মিষ্টি খাইয়েছেন দেবরাজ এবং আদিত্যকে। এই দুজনের জন্মদিন পালনে উপস্থিত ছিলেন তাদের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার অন্যান্য সদস্যরাও। তারাও পায়েস, মিষ্টি খেয়ে আনন্দে শামিল হয়েছেন। তাদের এই উদ্যোগে খুশি কিন্নর সম্প্রদায়ের মানুষজন। এইরকম ভাবে তাদের সঙ্গে কেউ জন্মদিন পালন করেনি বলে জানিয়েছেন তারা। তাদের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন কিন্নররা।