আরোহী নিউজ ডেস্ক: ২১জুলাই তৃণমূল কংগ্রেসের শহিদ দিবসের রাতেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে বিরাটির বণিক মোর। শুভ্রজিৎ দত্ত নামে এক তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীকে গুলি করে খুনের অভিযোগ ওঠে একদল দুষ্কৃতী বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাস্থলে আসেন ব্যারাকপুরের পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মা। ইতিমধ্যে ২জন কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চালাচ্ছে পুলিশ। সম্পূর্ণ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে নিমতা থানার পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে খবর, বুধবার বিরাটি ১৮নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূলেরপার্টি অফিস থেকে রাত ১০.৩০ নাগাদ হেঁটে বাড়ি ফিরছিলেন শুভ্রজিৎ। তখনই আচমকা বণিক মোড়ের কাছে তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় একদল দুষ্কৃতী। অভিযোগ, দুটি বাইকে তিন-চার জন দুষ্কৃতী আচমকাই এসে শুভ্রজিৎকে লক্ষ্য করে পাঁচটি গুলি চালায়। এরমধ্যে একটি গুলি লাগে শুভ্রজিৎ এর কপালে এবং বাকি গুলি লাগে তার সারা শরীরে। এর পরে ঘটনাস্থলে লুটিয়ে পড়েন ওই তৃণমূল কর্মী।

গুলির আওয়াজে ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছান স্থানীয় বাসিন্দারা। সঙ্গে সঙ্গে খবর দেওয়া হয় নিমতা থানায়। পুলিশ এসে দেহ উদ্ধার করে উত্তর দমদম পুরসভার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। এরপরে সেই দেহ আরজিকর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে ময়নাতদন্তের জন্য।

এরপরে বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাস্থলে আসেন ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মা।ঘটনাস্থল ঘুরে দেখেন,তদন্ত স্বার্থে কিছু বলতে না চাইলেও এই খুনের ঘটনায় কিছু তথ্য এসেছে পুলিশের কাছে,তা তদন্ত করে দেখছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, একুশে জুলাই বুধবার দুপুরেই এলাকার দুষ্কৃতী হিসেবে পরিচিত বাবুলাল সিংয়ের সঙ্গে বসে জড়িয়ে ছিলেন শুভ্রজিৎ সহ আরো কয়েকজন তৃণমূল কর্মী। এর পরেই রাতে খুন হতে হলো শুভ্রজিৎকে। এই দুটি ঘটনার মধ্যে পারস্পরিক যোগসুত্র রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে নিমতা থানার পুলিশ। একই সঙ্গে এলাকার সিসিটিভি ফুটেজও খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারী দল। তবে পুলিশের বক্তব্য ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পর এবং সমস্ত দিক খতিয়ে দেখে তারপরে জানানো যাবে এটি রাজনৈতিক প্রতিহিংসাপরায়ণ ভাবে খুন নাকি অন্য কোনো কারণ রয়েছে এর পেছনে।