আরোহী নিউজ ডেস্ক :  হাড়োয়া কান্ডে নয়া মোড়। বুধবার সংঘর্ষের পর থমথমে হাড়োয়া এলাকা। ‌ এলাকায় মোতায়েন কমব্যাট ফোর্স এর পুলিশ। মোহনপুর টেংরামারী মাভেরিক ফান্ডে বছরে কয়েক লক্ষ টাকা জমা পড়ে শুধুমাত্র গ্রামের উন্নয়ন এবং রাস্তাঘাট মেরামতের জন্য। সূত্রের খবর সেখানে ১৬০০ বিঘে সরকারি খাস জমি রয়েছে। সেখানে মাছ চাষ হয় আর সেই চাষের মুনাফার অর্থ জমা পড়ে ফান্ডে। অভিযোগ বারবার বলা সত্ত্বেও কোনো রকম উন্নয়নমূলক কাজ হচ্ছিল না।

প্রসঙ্গত বসিরহাট মহকুমা হাড়োয়া থানার মিনাখা ব্লকের মোহনপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের গ্রামে বুধবার রাজনৈতিক সংঘর্ষ বাধে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে। স্থানীয় সূত্রে খবর, তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ চরম পর্যায়ে পৌঁছে যায়। স্থানীয়দের অভিযোগ এই গোষ্ঠীর সংঘর্ষের মধ্যে পড়েই গুলির আঘাতে মৃত্যু হয় এক বৃদ্ধা এবং এক যুবকের।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুধবার থেকেই এলাকায় চাপা উত্তেজনা রয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে না যায় তার জন্য এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে কমব্যাট ফোর্স এর পুলিশ। মৃতদের পরিবারের অভিযোগ দীর্ঘদিন ধরেই এলাকায় কোন রকম উন্নয়নমূলক কাজ হচ্ছিল না। এমনকি মাভেরিক ফান্ড রয়েছে যেখানে, সেখানে প্রতি বছর কয়েক লক্ষ টাকায় জমা পড়ে। কিন্তু সেই ফান্ডের টাকা কারকে দেওয়া হয় না। তাদের আরও অভিযোগ যেহেতু তারা আদিবাসী তাই তাদের সমস্ত রকম উন্নয়নমূলক কাজ থেকে বঞ্চিত করা হয়। এটি প্রতিবাদ করতে গেলে বারে বারে ছোটখাটো সংঘর্ষের মুখে পড়তে হয় অভিযোগকারীদের। এই সমস্যা একদিনের নয় দীর্ঘদিনের। ‌

বুধবারই ঘটনাস্থল থেকে বেশকিছু গুলির খোল উদ্ধার করেছে পুলিশ। ৩১ জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে হাড়োয়া থানায়। লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ১৮ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধৃতদের বৃহস্পতিবার বসিরহাট মহকুমা আদালতে তোলা হয়। পুলিশ সূত্রে খবর অভিযুক্তদের পুলিশি হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানাবে হাড়োয়া থানার পুলিশ। তবে শুধুই রাজনৈতিক কারণে গন্ডগোল নাকি এই খুনের পেছনে অন্য কোনো কারণ রয়েছে তার তদন্ত শুরু করেছে হাড়োয়া থানার পুলিশ। ‌ অন্যদিকে এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত যোগেশ্বর প্রামাণিক এর খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।