পূর্ব বর্ধমানের ঘোষ বাড়ি থেকে ঐতিহ্যবাহী দেবীমূর্তি গেল সংগ্রহশালায়

31

আরোহী নিউজ ডেস্ক,পূ্র্ব বর্ধমান: ১৩০০ বছরের প্রাচীন মূর্তি এনে যে বিড়ম্বনায় পড়েছিলেন পূ্র্ব বর্ধমানের ঘোষ পরিবার তা থেকে মুক্তি মিলল শুক্রবার। কাটোয়া মহকুমা গ্রন্থাগার তরফে প্রতিনিধিদল বেড়াগ্রামে গিয়ে পুলিশের উপস্থিতিতে উদ্ধার করলেন মূর্তিটি। সেটি নিয়ে যাওয়া হল কাটোয়া মহকুমা গ্রন্থাগারের সংগ্রহশালায়।

গত ২৫ মার্চ মণ্ডলহাট থেকে দাঁইহাট পুরসভা যাওয়ার রাস্তায় একটি পুকুরের পাঁক তোলার সময় প্রায় সাড়ে চার ফুট উচ্চতার এই মূর্তি উদ্ধার হয়। বেড়াগ্রামের বাসিন্দা উদয় ঘোষ, দিলীপ ঘোষরা মূর্তিটি নিজেদের বাড়িতেই রেখে দেন। এনিয়ে ওই পরিবারের সদস্যরা জানান, ‘দেবীর মূর্তিটি আনার তিনদিনের মধ্যেই আমাদের বাড়ির চারটে মোষ হঠাৎই অসুস্থ হয়ে মারা যায়। ১০ দিন পার হতে না হতেই আমাদের বাড়ির ছেলে বাসুদেব(৩০) ঘরের চাল ছাওয়ানোর সময় পড়ে যায়। এখনও সে বিছানায় শয্যাশায়ী। তিনদিন আগে আমাদের বাড়িতে বজ্রপাত হয়েছে। বাজের আওয়াজে বাড়ির একজন শিশু কানে শুনতে পাচ্ছে না।’ তাঁদের ধারণা ওই মূর্তিটি আনার কারণেই এইসব অঘটন ঘটছে। তাই তাঁরা মূর্তি বাড়িতে রাখতে চাইছিলেন না। বিষয়টি জানার পর শুক্রবার কাটোয়া মহকুমা গ্রন্থাগারের সম্পাদক তুষার পণ্ডিত-সহ কয়েকজন যান ঘোষ বাড়িতে। সেখান থেকে মূর্তিটি উদ্ধার করে গ্রন্থাগারের সংগ্রহশালায় নিয়ে যাওয়া হয়।

মূর্তিটি দিয়ে দেওয়ার আগে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘মাতৃমূর্তিটি ছাড়তে কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু দেবীর যথাযথ পুজো হচ্ছে না। বাড়িতেও নানা অঘটন ঘটছে। তাই আমরা মূর্তিটি সরকারি হেফাজতে দিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’