আরোহী নিউজ ডেস্ক: বলিউডে সিক্যুয়েল তৈরি খুবই সাধারণ ব্যাপার। বক্স অফিসে যদি কোনও ছবি দারুণভাবে সাফল্য পায়, তবে পরিচালক ভবিষ্যতে তা নিয়ে সিক্যুয়েল তৈরি করেই থাকেন। যা প্রথম গল্পকেই এগিয়ে নিয়ে যায়। তবে সিক্যুয়েলে প্রথম সিনেমার মুখ্য চরিত্রগুলি বদলে দেওয়ার প্রবণতা আমরা দেখেছি। এর পেছনে একাধিক কারণ রয়েছে। প্রথম কারণ হয়ত প্রথম ছবির অভিনেতা সিক্যুয়েলে চরিত্রের জন্য অনেকটাই বয়স্ক। অথবা পরিচালকও অনেক সময় সিক্যুয়েলে অন্য অভিনেতাদের নিয়ে কাজ করতে ইচ্ছুক হন। সেরকমই কিছু অভিনেতা–অভিনেত্রীদের কথা জেনে নিন যাঁদের বদলে দেওয়া হয়েছিল সিক্যুয়েল ছবিতে।

মল্লিকা শেরাওয়াত ও রাহুল বোসঃ শাদি কে সাইড এফেক্ট
এই-এর আসল সিনেমায় অভিনয় করেছিলেন মল্লিকা ও রাহুল বোস। এটা একটি রোম্যান্টিক কমেডি ছবি ছিল। তবে এই সিনেমার সিক্যুয়েলে তাঁদের বদলে বিদ্যা বালন ও ফারহান আখতারকে নেওয়া হয়।

অক্ষয় কুমারঃ ওয়েলকাম ব্যাক
ওয়েলকাম ছবিতে অক্ষয় কুমারের অনবদ্য অভিনয় ও কমেডি দর্শকদের হাসতে হাসতে পেটে খিল ধরে গিয়েছিল। যদিও সিক্যুয়েল ছবি ওয়েলকাম ব্যাক-এ অক্ষয়ের পরিবর্তে জন আব্রাহামকে নেওয়া হয় এবং তিনি সমভাবে চরিত্রটির সঙ্গে ন্যায় বিচার করেন। বক্স অফিসে এই সিনেমাটিও হিট ছিল।

আলি জাফরঃ তেরে বিন লাদেন–ডেড অর অ্যালাইভ
কমেডি ছবি তেরে বিন লাদেন-এ মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন আলি জাফর। যদিও ৬ বছর পর ২০১৬ সালে সিক্যুয়েল তেরে বিন লাদেন-ডেড অর অ্যালাইভ ছবিতে আলির বদলে মণীশ পাল অভিনয় করেছিলেন।

আরশাদ ওয়ারসি–জলি এলএলবি ২
সুভাষ কাপুর ও আরশাদ ওয়ারসি মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করা জলি এলএলবি কমেডি ছবিটি দারুণভাবে হিট হয়েছিল। কিন্তু যখন জলি এলএলবি ২ ছবিটি তৈরি হয়, ছবির নির্মাতারা আরশাদের বদলে অক্ষয় কুমারকে নেন। তবে এই চরিত্রটির সঙ্গে যথাযথ ন্যায় বিচার করেছেন অক্ষয় কুমার। আরশাদ ও অক্ষয় দু’‌জনেই অসাধারণ অভিনয় করেছিলেন।

ইমরান হা‌শমি–মার্ডার ৩
ইমরান হাশমিকে থ্রিলার সিরিজ মার্ডার ও মার্ডার ২-তে দেখা গিয়েছিল অভিনয় করতে। তবে মুকেশ ভাটের ছেলে বিশেষ ভাট যখন সিক্যুয়েলের জন্য ইমরান হাশমিকে প্রস্তাব দিয়েছিলেন, ইমরান শুধু এই ছবিতে অভিনয় করবেন না সেটা জানানোর পাশাপাশি ছবিতে অনেক পরিবর্তন আনার কথাও জানিয়েছিলেন। এরপরই ভাট প্রযোজকরা সিদ্ধান্ত নেন যে মার্ডার ৩-তে ইমরানের পরিবর্তে রণদীপ হুডাকে নেওয়া হবে। ইমরান হাশমি ছাড়াই হিট হয়েছিল মার্ডার ৩।

ইমরান হাশমি–ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন মুম্বই দোবারা”
ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন মুম্বই-তে ইমরান হাশমির শোয়েব খানের চরিত্রটি যথেষ্ট প্রশংসিত। যদিও ছবির সিক্যুয়েলে ইমরানের পরিবর্তে অক্ষয় কুমারকে নেওয়া হয়।

গ্রেসি সিং–লগে রহো মুন্না ভাই
লগে রহো মুন্না ভাই ছবিতে গ্রেসি সিংয়ের উজ্জ্বল উপস্থিতি আমাদের সকলের মনে আছে। যদিও সিক্যুয়েল ছবিতে গ্রেসি সিংয়ের বদলে বিদ্যা বালনকে নেওয়া হয়।

ইশা কোপিকর–ডন ২
ডন ২-তে ইশা কোপিকারের চরিত্রটিতে অভিনয় করেছিলেন লারা দত্তা।

কাজল আগরওয়াল–সিংঘম রিটার্ন
সিংঘমে অজয় দেবগণের সঙ্গে রোম্যান্স করতে কাজল আগরওয়ালকে দেখা গেলেও সিংঘম রিটার্নে তাঁর পরিবর্তে করিনা কাপুরকে দেখা যায়।

করিনা কাপুর–গোলমাল ৪
গোলমাল ছবির সিক্যুয়েলে রিমি সেনের পরিবর্তে করিনা কাপুরকে নেওয়া হয় এবং গোলমাল ৪-এ করিনার পরিবর্তে পরিণীতি চোপড়া অভিনয় করেন।

আমন সিদ্দিকি–ভূতনাথ রিটার্ন
বাঙ্কু আর ভূতনাথ চরিত্রটি দর্শকদের মন জয় করেছিল ভূতনাথের আসল সিনমাটিতে। কিন্তু সিক্যুয়েল ভূতনাথ রির্টানে শিশু চরিত্রে আমনের বদলে অভিনয় করেন পার্থ ভালেরাও।

অক্ষয় কুমার–আঁখে ২
আঁখে-তে প্রধান চরিত্রে অক্ষয় কুমার অভিনয় করলেও আঁখে ২-তে তাঁর পরিবর্তে আরশাদ ওয়ারসি অবিনয় করেন।

দিব্যেন্দু শর্মা ও রায়ো এস ভর্কিতা–প্যায়ার কা পঞ্চনামা ২
প্যায়ার কা পঞ্চনামার সিক্যুয়েল প্যায়ার কা পঞ্চনামা ২-তে দিব্যেন্দু শর্মা ও রায়ো এস ভর্কিতা বদলে অভিনয় করেছিলেন ওমকার কাপুর ও সানি সিং।

রীতেশ দেশমুখ–ক্যায়া কুল হ্যায় হাম
ক্যায়া কুল হ্যায় হাম ছবির ২টি সিক্যুয়েলে রীতেশ দেশমুখকে দেখা গেলেও তৃতীয় সিক্যুয়েলে রীতেশের বদলে আফতাব শিবদেশানিকে দেখা গিয়েছিল।

রিমি সেন–গোলমাল রিটার্ন
গোলমাল রিটার্নে রিমি সেনের পরিবর্তে করিনা কাপুরকে দেখা যায়।

শরমন জোশি–গোলমাল রিটার্ন
গোলমাল রিটার্নে শরমন জোশির পরিবর্তে শ্রেয়াস তালপড়ে অভিনয় করেন।