আরোহী নিউজ ডেস্ক : অনৈতিকভাবে শিক্ষকদের বদলি করা হচ্ছে, এই অভিযোগ নিয়েই কিছুদিন আগে বিকাশ ভবনের সামনে বিষপান করেন ৫ জন শিক্ষিকা। আর এবার সেই অভিযোগ নিয়েই হাইকোর্টে মামলা দায় করেন মুর্শিদাবাদের ভোকেশনাল শিক্ষিকা অনিমা নাথ। তাঁকে বদলি করো দেওয়া হয়েছে হুগলির বলাগর থেকে মালদায়। আর সেই জন্যই মঙ্গলবার বিচারপতি সৌগত ভট্টাচার্য রাজ্য কে প্রশ্ন করেন কিসের জন্য এই বদলিকরণ? কোন ক্ষমতার জেরে এই বদলি করেছে রাজ্য সরকার? এই সমস্ত বিষয়ের জন্য বুধবার রাজ্যকে সময় দিয়েছিল হাইকোর্ট।

অস্থায়ী শিক্ষকদের বদলির কোনও আইন নেই, দরকারে স্থানান্তরিত করা হতে পারে এমনটাই জানিয়েছেন রাজ্য সরকার। তবে এই সম্পূর্ণ বিষয় যুক্তিযুক্ত নয় বলেই জানিয়ে দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। কলকাতা হাইকোর্ট স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছে অস্থায়ী শিক্ষকদের “ট্রান্সফর্মার পলিসি” নেই তাই জন্যই কি কারণে তাদেরকে বদলি করা হচ্ছে তার একটি হলফনামা দিতে হবে রাজ্য সরকারকে। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে হলফনামা দিতে হবে রাজ্য সরকারকে, আর সেই জন্যই আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত অনিমা নাথের বদলিতে স্থগিতাদেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট।

প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই অস্থায়ী এই শিক্ষকরা তাদের এই অনৈতিক বদলিকরণ এর জন্য দ্বারস্থ হয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রীর কাছে। তবে সাড়া মেলেনি রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রীর। তারপরেই বিকাশ ভবনের সামনে বিষপান করে প্রতিবাদ জানায় শিক্ষক ঐক্য মুক্তমঞ্চের এই শিক্ষিকারা। এবং এই ঘটনায় প্ররোচনা যোগানোর অভিযোগে বর্তমানে গৃহবন্দি অবস্থায় রয়েছেন শিক্ষক নেতা মইদুল ইসলাম। তবে হাইকোর্টের এই সিদ্ধান্তে খুশি অস্থায়ী শিক্ষক সংগঠন। আর রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে হাইকোর্টের এই সিদ্ধান্তের পরিবর্তে কি পদক্ষেপ নেওয়া হবে তা এখন দেখার অপেক্ষা।