আরোহী নিউজ ডেস্ক: রবিবার সকালে ছুটির আমেজ নিয়ে ময়দানে যখন প্রাতঃভ্রমণকারীদের আড়মোড়া ভাঙছে ঠিক সেই সময়ই সাইকেলে চেপে হাজির হলেন স্বয়ং নগরপাল সৌমেন মিত্র। এখানেই চমকের শেষ নয়। কর্তব্যরত পোশাকে তো নয়ই বরং সাইকেল রাইডার স্যুটে। শুধু তাই নয় সঙ্গে ছিলেন গোয়েন্দা প্রধান মুরলিধর শর্মা ও ডিসি সাউথ আকাশ মাঘারিয়া।

এমতপরিস্থিতিতে সাত সকালেই শোরগোল পরে যায় তাদের ঘিরে। এরপই জানা যায় পুলিশ কর্তাদের এইভাবে ময়দান চত্ত্বরে ঢুঁ মারার কারণ কি? জানা যায় কিছুদিন ধরেই ময়দান এলাকায় ছিনতাইবাজদের দৌরাত্ম্য শুরু হয়েছে। এরপরে কিছুদিন আগে এক প্রাতঃভ্রমণকারী যুবককে পড়তে হয়েছিল ছিনতাইবাজকারীদের কবলে। রক্তাক্ত হয়ে তাকে হাসপাতালেও ভর্তি হতে হয়েছিল। এরপরই পুলিশ আরও সক্রিয় হয়ে ওঠে ওই এলাকায়। আর তাই রবিবার সকালে পুলিশি ব্যবস্থা সরেজমিনে খতিয়ে দেখতে পুলিশকর্তারা হটাৎই হাজির হয়েছিলেন ময়দান চত্বরে। এমনকী পুলিশদের বেশ কয়েকটি নির্দেশ দেন তিনি। ময়দান চত্বরে তাঁরা ঘুরে দেখেন। বেশ কয়েকটি সতর্কতাও নিতে বলেন পুলিশকে। এমনকী কয়েকজন প্রাতঃভ্রমণকারীদের সঙ্গেও কথা বলে তাঁদের সাহস জোগান।

প্রসঙ্গত, গত বুধবার ময়দানের প্রাতঃভ্রমণকারীর উপর ছিনতাইয়ের ঘটনায় প্রবল আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে । তাই প্রাতঃভ্রমণকারীদের মধ্যে আতঙ্ক দূর করতে নিজেই ময়দানে হাজির হয়েছিলেন নগরপাল। অতীতে এমন ছবি দেখা যায়নি। ছিনতাইয়ের ঘটনার পর থেকে পুলিশি নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে ময়দানে। এমনকী চলছে পুলিশি টহলদারিও।

প্রাতঃভ্রমণকারীদের অনেকেই পুলিশ কমিশনারকে জানান, হামলার ঘটনায় তাঁরা আতঙ্কিত। সেই রেশ কাটিয়ে উঠতে পারেননি। আবার অনেকে ভয়ে হাঁটতে আসাও বন্ধ করে দিয়েছে। এই কথা শোনার পর তিনি আশ্বস্ত বলেন কোনো সমস্যা হলে তারা যেন টহলরত পুলিশকে বিষয়টি জানায়। রবিবার সকালে পুলিশ কমিশনারের এই ঝটিকা সফরে আশ্বস্ত হয়েছেন অনেক প্রাতঃভ্রমণকারী।